বজ্রপাতে স্কুলছাত্রসহ ৬ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত: ৮:৫০ অপরাহ্ণ, জুন ২, ২০১৯ | আপডেট: ৮:৫০:অপরাহ্ণ, জুন ২, ২০১৯
বজ্রপাতে স্কুলছাত্রসহ ৬ জনের মৃত্যু

নওগাঁর পোরশা, সাপাহার, মহাদেবপুর, পঞ্চগড় সদর, জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল ও খুলনার কয়রা উপজেলায় বজ্রপাতে স্কুলছাত্রসহ ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। রোববার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এসব ঘটনা ঘটে। বিস্তারিত পড়ুন স্থানীয় সংবাদদাতাদের পাঠানো সংবাদে-

নওগাঁ প্রতিনিধি জানান, নওগাঁয় বজ্রপাতে শিশুসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। রোববার পৃথক সময়ে জেলার পোরশা, সাপাহার ও মহাদেবপুর উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন পোরশা উপজেলার শিশা নশিংগাহার গ্রামের মৃত ফুল মোহাম্মাদের ছেলে আব্বাস আলী (৪৫), মহাদেবপুর উপজেলার বাফিরাবাদ গ্রামের আমেদ আলীর ছেলে নাদিউজ্জামান নয়ন (১২) এবং সাপাহার উপজেলায় চুটু (৫০)। তার বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জের শীবগঞ্জ উপজেলার ডুলডুলি গ্রামে।

স্থানীয় ভাবে জানা গেছে, সকাল থেকেই আবহাওয়া ছিল মেঘাচ্ছন্ন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আব্বাস আলী তার বাড়ির পাশে মাঠে গরু নিতে যান। এ সময় হঠাৎ বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

অপরদিকে সাপাহার উপজেলার কলমুডাংগা গ্রামের মাঠে বোরো ধান কাটার কাজ করছিলেন চুটু। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে হঠাৎ ঝড় বৃষ্টি শুরু হয়। এসময় হঠাৎ করেই বজ্রপাত হলে গুরুত্বর আহত হন। ধান কাটার অন্য শ্রমিকরা তাকে উদ্ধার করে পোরশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে, মহাদেবপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন বলেন, বেলা ১২টার দিকে নাদিউজ্জামান নয়ন বাড়ির পার্শ্বে মাঠে খেলা করছিল। এসময় হঠাৎ করে বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয় বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন।
আব্বাস আলী

পঞ্চগড় প্রতিনিধি জানান, পঞ্চগড়ে বজ্রপাতে আশরাফুল ইসলাম (২৮) নামে এক কৃষি শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন আরও দুই কৃষি শ্রমিক। রোববার সকালে সদর উপজেলার কামাত কাজলদিঘি ইউনিয়নের ফকিরপাড়ায় বজ্রপাতের ঘটনাটি ঘটে।

নিহত আশরাফুল ওই ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া এলাকার আবুল হোসেন বিশারুর ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, সকালে আশরাফুল ইসলাম তার সহকর্মীদের সঙ্গে স্থানীয় এক কৃষকের ধান কেটে ধানের বোঝা নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় গুড়িগুড়ি বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই নিহত হন আশরাফুল। একই ঘটনায় ওই এলাকার জামাল উদ্দিনের ছেলে আরিফুজ্জামান (২৬) এবং ময়জুদ্দিনের ছেলে মোবারক হোসেন (২৬) আহত হন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।।

জয়পুরহাট প্রতিনিধি জানান, জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার মুন্দাইল গ্রামে বজ্রপাতে আনোয়ার হোসেন হাবু (৩০) নামে কৃষক নিহত হয়েছেন। রোববার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। নিহত হাবু একই উপজেলার আকবর আলীর ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে ক্ষেতলাল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহরিয়ার খান জানান, দুপুরে বাড়ির পাশে একটি সবজি ক্ষেতে বৃষ্টির পানি জমে গেলে তা বের করে দেয়ার সময় বজ্রপাতে গুরুতর আহত হন হাবু। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ক্ষেতলাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে আসার পথে রাস্তায় তার মৃত্যু হয়।

খুলনার নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, খুলনার কয়রায় বজ্রপাতে মাজেদা খাতুন (৪৫) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার বামিয়া গ্রামের খয়বার সরদারের স্ত্রী। রোববার দুপুর ২টার দিকে বামিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, মাজেদা খাতুন বাগালী ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ভিজিএফের চাল নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন দেখে বাগালী ইউনিয়ন পরিষদের পার্শ্বে ১টি নারকেল গাছের নিচে আশ্রয় নেয়। সেখানে আকস্মিক বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন তিনি। বাগালী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস ছাত্তার বজ্রপাতে তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।