মনপুরা ঘূর্ণীঝড় ‘ফণী’ মোকাবেলায় পানিউন্নয়ন বোর্ড

প্রকাশিত: ৭:১৩ অপরাহ্ণ, মে ৩, ২০১৯ | আপডেট: ৭:১৩:অপরাহ্ণ, মে ৩, ২০১৯
মনপুরা ঘূর্ণীঝড় ‘ফণী’ মোকাবেলায় পানিউন্নয়ন বোর্ড

মনপুরা মেঘনার অব্যাহত ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে যাচ্ছে জনপদ। মেঘনার তীব্র ভাঙ্গনের হুমুকতে রয়েছে উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের মাষ্টার হাট বাজারের পশ্চিম পাশের বেড়ীবাঁধ ও কোরেজডেম। হাজিরহাট ইউনিয়নের সোনারচর রাস্তার মাথা, দাসেরহাট, চৌধুরী বাজারের পুর্ব পাশের বেড়ীবাঁধ। দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ ও পুর্বপাশের বেড়ীবাঁধ।

মেঘনার ভাঙ্গনে “বিলীন হচ্ছে মনপুরার জনপদ” শিরোনামে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর নজরে আসে পানি উন্নয়ন বোর্ডের। গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর সরজমিনে যায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলীরা।

ঘূর্ণীঝড় ‘ফণী’ মোকাবেলায় ঝুঁকিপূর্ণ বেড়ীবাধগুলোতে বালু ভর্তি করে জিও ব্যাগ ফালানোর উদ্যোগ নেয় পানিউন্নয়ন বোর্ড।

শুক্রবার সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঘূর্ণীঝড় ‘ফণী’ মোকাবেলায় উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের মাষ্টারহাট বাজার পশ্চিম পাশের ঝুঁকিপূর্ণ বেড়ীবাধ রক্ষা করার জন্য উপসহকারী প্রকৌশলী মোঃ আবুল কালাম এর নের্তৃত্বে জিও ব্যাগে বালু ভর্তি করে মেঘনার তীরে ফালানো হচ্ছে।

এব্যাপারে উপসহকারী প্রকৌশলী আবুল কালাম বলেন, আমরা সরজমিনে গিয়ে মেঘনা ভাঙ্গন কবলিত এলাকাগুলো সনাক্ত করেছি। ঝুঁকিপূর্ণ বেড়ীবাধগুলো ইমারজেন্সী কাজ করছি। ভাঙ্গন কবলিত এলাকাগুলো প্রস্তাব আকারে বøক নির্মাণের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি।