কিশোরকে বেঁধে পেটানোর ঘটনায় হাইকোর্টের ক্ষোভ

প্রকাশিত: ১০:৪৭ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০১৯ | আপডেট: ১০:৪৭:পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০১৯
কিশোরকে বেঁধে পেটানোর ঘটনায় হাইকোর্টের ক্ষোভ

ভোলার চরফ্যাসনে ইউপি মেম্বার কর্তৃক কিশোর রুবেল (১৪) নির্যাতনের ঘটনায় উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে নির্যাতনের ঘটনা অনুসন্ধান করে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

সংশ্লিষ্ট জেলার প্রশাসক (ডিসি) ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) এই আদেশ বাস্তবায়ন করার জন্য বলা হয়েছে।

সোমবার এক আদেশে আদালত বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট জেলার প্রশাসক (ডিসি) ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) মূল ঘটনা কী তা খুঁজে বের করবেন।’

পত্রিকায় প্রকাশিত ঘটনাটি দৃষ্টি আকর্ষণ করার পর সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ ক্ষোভ প্রকাশ করে এই আদেশ দেন।

পত্রিকায় প্রকাশিত ঘটনাটি আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অমিত দাশগুপ্ত।

প্রকাশিত প্রতিবেদন দেখে এবং এমন নৃশংস ঘটনার বর্ণনা শুনে শিশুদের নিরাপত্তা ও সামাজিক আচরণের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন আদালত। পাশাপাশি হাইকোর্টের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলকে নির্দেশ দেন ঘটনা অনুসন্ধান করে জেলা প্রশাসক ও ওসির মাধ্যমে বিষয়টি আদালতকে অবহিত করার জন্য।

গত ১৫ নভেম্বর ভোলার চরফ্যাসন উপজেলার হাজারীগঞ্জ ইউনিয়নে মুরগি চুরির অপবাদ দিয়ে স্থানীয় ইউপি মেম্বার আমজাদের নেতৃত্বে রুবেল (১৪) নামের এক কিশোরকে বেঁধে নির্যাতন করা হয়। নির্যাতনকারীদের হুমকি আর আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে ওই কিশোরের পরিবার মামলা করতে পারেনি। তবে নির্যাতনের দৃশ্য ফেসবুকে ভাইরাল হলে ঘটনার এক মাসের বেশি সময় পর শনিবার (১৯ জানুয়ারি) পুলিশ ওই কিশোরের মাকে ডেকে নেয়। পরে হাজারীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার আমজাদ হোসেনসহ ৬ জনকে আসামি করে শশীভূষণ থানায় এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়।